পৌর ভবনে অবস্থানরত বহিরাগতদের বের করে দিল প্রশাসন

আমির হোসেন

নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার শতাধিক অনুসারীকে বসুরহাট পৌরসভা ভবন থেকে বের করে দিয়েছে প্রশাসন।

মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) রাত ৯টার দিকে মির্জা অনুসারী বহিরাগতদের বসুরহাট পৌরসভা ভবনের বের করে দেয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা। এর আগে, পৌর ভবনে অভিযান করে জেলা পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় উপজেলা প্রশাসন কর্মকর্তারা।

পুলিশ প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, কোম্পানীগঞ্জে উপজেলা আ.লীগ ও কাদের মির্জার মধ্যে বিবদমান দ্বন্ধকে কেন্দ্র করে দীর্ঘ দিন থেকে মির্জা কাদেরের শতাধিক অনুসারী আ.লীগ নেতাকর্মি পৌরসভা ভবনের তৃতীয় তলায় অবস্থান করে আসছিল। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ফের দু’গ্রুপের মধ্যে বসুরহাট পৌরসভার করালিয়া এলাকায় সংঘর্ষ হলে দু’পক্ষের নেতাকর্মিদের মাঝে উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এবং পৌর ভবনে বহিরাগতদের ভিড় ভাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে প্রশাসনের কর্মকর্তারা পৌর ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে মির্জা কাদেররের অনুসারী বহিরাগতদের পৌর ভবন ছাড়তে ৫ মিনিটের সময় বেধে দিয়ে মাইকিং করে প্রশাসনের কর্মকর্তারা। পরে প্রশাসনের উপস্থিতিতে মির্জা কাদেরের অনুসারীরা পৌরসভা ভবন ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়।

অভিযানে অংশ নেয়, নোয়াখালীর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো.শামীম কবির,  সহকারী পুলিশ সুপার (হাতিয়া সার্কেল) মো.ফারুক, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সুপ্রভাত চাকমা, কোম্পানীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর জাহিদুল হক রনি, পরিদর্শক (তদন্ত) মো.রবিউল হক।

এ বিষয়ে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.জিয়াউল হক মীর জানান, সরকারি নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে করোনা কালীন সময়ে শতাধিক বহিরাগত ব্যক্তি এক সাথে পৌর ভবনে অবস্থান করায় তাদেরকে পৌর ভবন থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে।