দেশকে পুনরায় জঙ্গি আস্তানা বানাতে চক্রান্তে লিপ্ত বিএনপি

নিউজ ডেস্ক : দেশকে অস্থিতিশীল করতে বিএনপি-জামায়াত জোট যে এখনো সক্রিয়, সেটি আবারও প্রমাণিত হলো চট্টগ্রাম মিরসরাইয়ের সোনাপাহাড়ের জঙ্গি আস্তানার ঘটনায়। জঙ্গিবাদের আস্তানা হিসেবে ব্যবহৃত সোনাপাড়ার বাড়িটির মালিক মাজহার চৌধুরী বিএনপির সক্রিয় কর্মী। র‌্যাবের হাতে আটক মাজহার ইতোমধ্যে স্বীকার করেছেন, দেশকে অস্থিতিশীল করে নির্বাচনের পূর্বে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতেই বিএনপির একজন কেন্দ্রীয় নেতার নির্দেশেই জঙ্গিদের স্বদেশ বিরোধী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করার জন্য বাড়িটি ভাড়া দেন তিনি।

সূত্র বলছে, আটক মাজহার মিরসরাই উপজেলা যুবদলের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক ও বর্তমানে উত্তর জেলা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বরত রয়েছেন। জানা গেছে, বিএনপির একজন প্রভাবশালী কেন্দ্রীয় নেতার সরাসরি নির্দেশে চৌধুরী ম্যানশন নামের ৫ কক্ষের ওই বাড়িটি গত কয়েকদিন আগে এক নারী ও চার পুরুষ জঙ্গিকে ভাড়া দেন মাজহার চৌধুরী। মূলত, সরকারকে চাপে ফেলতে এবং বাংলাদেশকে পুনরায় জঙ্গিরাষ্ট্র হিসেবে বহিঃর্বিশ্বে বদনাম করার চক্রান্ত বাস্তবায়ন করতে মাজহার সহায়তাস্বরূপ বাড়িটি ভাড়া দেওয়ার সময় ৫ জঙ্গির কারো কোন পরিচয়পত্র জমা নেননি।

এলাকাবাসীর দাবি, স্থানীয় থানা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাসা ভাড়া দেওয়ার সময় বাড়ি মালিকদের ভাড়াটিয়ার পরিচয় নিশ্চিত হতে পরিচয় পত্র ও ছবি জমা নেওয়াটা বাধ্যতামূলক। বিএনপি সমর্থিত বাড়ি মালিক মাজহার ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে দলকে অন্ধ সমর্থন করেই জেনেশুনে জঙ্গিদের বাড়িটি ভাড়া দেন। বিএনপি নেতার বাড়িতে জঙ্গি আস্তানা হওয়ায় স্থানীয়রা দুঃচিন্তায় পড়েছেন।

এই বিষয়ে উপজেলার ৫ নম্বর ওসমানপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা আবদুল ওয়াজেদ বলেন, মাজহার চৌধুরী বিএনপির কট্টর সমর্থক। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে মাজহার ক্ষমতার অপব্যবহার, দুর্নীতি ও চাঁদাবাজি করে কোটি কোটি টাকা লোপাট করে সম্পদের পাহাড় গড়েছেন। বিএনপি বিরোধী দলে থাকলেও মাজহার অর্থের প্রভাব খাটিয়ে এলাকায় নানা অপকর্ম করতো। বিএনপি নেতারাই জঙ্গি লালন-পালন করছেন, সেটি আবারও প্রমাণ করলেন বিএনপি নেতা মাজহার। বিএনপি নেতার যোগসাজসে জঙ্গিদের বাড়ি ভাড়া দেওয়ার মাধ্যমে পরিকল্পিতভাবে নাশকতা চালানোর ছক আঁকা হয়েছে। এসব বিষয় খতিয়ে দেখার জন্য আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি জোর দাবি জানাই।