জামায়াতের পর তারেক রহমানকে চায় না যুক্তফ্রন্ট

নিউজ ডেস্ক: জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনের রেখে ঐক্য করতে শুধু জামায়াত নয়, বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমানকে নিয়েও আপত্তি রয়েছে যুক্তফ্রন্ট নেতাদের। লন্ডনে রাজনৈতিক আশ্রয়ে থাকা তারেক রহমানকে বিতর্কিত আখ্যা দিয়ে যুক্তফ্রন্ট নেতারা বলছেন, ঐক্য প্রক্রিয়ায় আসতে চাইলে সে যেই হোক বি. চৌধুরী ও ড.কামাল হোসেনের নেতৃত্ব মেনেই আসতে হবে।

আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে একাদশ জাতীয় নির্বাচনে লড়তে বিএনপির এই বৃহত্তর ঐক্য প্রক্রিয়ায় আগ্রহী হলেও শর্তের বেড়াজালে সবকিছু থমকে গেছে। ঐক্য চাইলে এখন জামায়াত ছেড়ে মেনে নিতে হবে যুক্তফ্রন্টের নেতৃত্ব।

বিকল্পধারা বাংলাদেশের যুগ্ম-মহাসচিব মাহী বি. চৌধুরী বলেছেন, ‘আমাদের আলাদা করে বিএনপি’র কাছে দাবির কিছু নেই। আমরা তো বিএনপি’র সাথে কোনো ঐক্যের পথে যাচ্ছি না। এই ঐক্য প্রক্রিয়ার ভেতর যদি তারা ঢোকে তাহলে তাদের এই ঐক্য প্রক্রিয়ার মধ্যেই থাকতে হবে।’

বিএনপি ঐক্য চাইলেও দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে নিয়ে আপত্তি রয়েছে যুক্তফ্রন্টের।

গণফোরাম এর সভাপতি ড. কামাল হোসেন বলেছেন, ‘ওই দলের ভেতরের লোক জনেরও তাকে নিয়ে আপত্তি আছে। তবে এগুলো অন দ্য রেকর্ড বলে না। একই দলে থেকে দলীয় ভাইস চেয়ারম্যান সম্পর্কে তো এমন বলা যায় না। তবে সেই সব লোককে আমরা চিহ্নিত করি, যারা দলের লোক জনের কাছে গ্রহণযোগ্য না তবে সবার কাছে গ্রহণযোগ্য।’

বিএনপিকে নিয়ে বৃহত্তর ঐক্য হলে এবং নির্বাচনে এই জোট জয়ী হলেও সরকার গঠন প্রক্রিয়ায় বিএনপি’র শীর্ষ নেতাদের প্রাধান্য থাকবে না বলে জানিয়েছেন জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় জড়িত গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

তিনি বলেন, ‘আমরা জয়ী হলেও তারেক রহমানকে প্রধানমন্ত্রী করা হবে না। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতিসহ নানান অভিযোগ আছে, ফলে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার যোগ্যতাটুকুও তার নাই।’

বৃহত্তর জাতীয় ঐক্যের জন্য সব রাজনৈতিক দলের জন্যই দরজা উন্মুক্ত আছে বলে জানান নেতারা। তবে মেনে নিতে হবে এই প্রক্রিয়ার নেতৃত্ব।