বিএনপির সাথে ঐক্যে আগ্রহী নয় এলডিপি

এক যুগ ধরে রাষ্ট্রক্ষমতার বাইরে বিএনপি। ২০০৬ সালে রাষ্ট্রক্ষমতা হারানোর পর থেকেই বাংলাদেশের রাজনীতিতে দুঃসময়ের যাত্রা শুরু হয় বিএনপির। ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে পড়ে বিএনপির সাংগঠনিক ভিত্তি। ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে বিভিন্ন ধরণের অপকর্ম ও দুর্নীতির কারণে ভাটা পড়তে শুরু করে জনসমর্থনে।

পরবর্তীতে দলের অন্তঃকোন্দল এবং দলীয় কর্মসূচির নামে নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড করে এক প্রকার জনবিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে দলটি। এমতাবস্থায় বর্তমানে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ঐক্য গঠনের নামে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সাথে জোট গঠন করার প্রচেষ্টা শুরু করে।

ইতোমধ্যে একাধিক রাজনৈতিক দলের সাথে জোট গঠনের বিষয়ে আলোচনা সম্পন্ন করেছে বিএনপি। এরই ধারাবাহিকতায় বিএনপির জোটে থাকা এবং মতবিরোধের জের ধরে জোট ছেড়ে বের হয়ে যাওয়া কর্নেল অলির রাজনৈতিক দল এলডিপির সাথে ঐক্য গঠনের জন্য আহবান জানায় বিএনপি। কিন্তু ঐক্য গঠনে বেশিরভাগ রাজনৈতিক দলের ন্যায় এলডিপিও নেতিবাচক সাড়া দিয়েছে বিএনপিকে।

বিএনপির উদ্দেশ্যে বাংলাদেশ ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) চেয়ারম্যান কর্নেল অলি আহমেদ বলেছেন, ‘জনসমর্থনহীন, জনবিচ্ছিন্ন ব্যক্তিদের নিয়ে এগোলে কোনো কাজ হবে না। যাদের সাপোর্টার নাই তাদের নিয়ে ঐক্য করে কোনো লাভ নেই।’

এলডিপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম বলেন, ‘প্রায় ছয় বছর ধরে আমরা সব ধরণের লোভ লালসাকে উপেক্ষা করে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলে আছি। কিন্তু এখানে দেখছি হঠাৎ করে কেউ নিজেকে প্রধানমন্ত্রী, কেউ রাষ্ট্রপতি দাবি করে বসে আছেন। এমন নাটক চললেও বিএনপির পক্ষ থেকে জোরালো কোনো বক্তব্য পাচ্ছি না। কেউ একশ আসন, কেউ আবার দেড়শ আসন দাবি করছেন। কিন্তু এলডিপির মত দলের এখানে কোনো কথা থাকবে না, এটা হতে পারে না।’

এলডিপির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুল গনি বলেন, ‘বিএনপিকে বড় দল হিসেবে সমীহ করে যাব; আর তারা যখন খুশি তখন লাথি মেরে বের করে দেবে তা মেনে নেয়া হবে না’।

ঐক্যের বিষয়ে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের অন্যতম সদস্য এলডিপির পক্ষ থেকে এমন নেতিবাচক সাড়া পাওয়ার পর বিপাকে রয়েছে বিএনপি। একাধিক রাজনৈতিক বিশ্লেষকের মতে নির্বাচনের আগে চাওয়া পাওয়ার হিসেবে মিলিয়ে জোটের রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে ঐক্য গঠন করাই প্রধান চ্যালেঞ্জ বিএনপির জন্য। দলের চেয়ারপারসনের কারাবাস, নির্বাচনে যাওয়া নিয়ে সংশয়, জনসমর্থনে ভাটা, ঐক্য গঠনে ব্যর্থতা ইত্যাদি কারণে বাংলাদেশের রাজনীতিতে কঠিন সময় পার করছে বিএনপি।