লন্ডনে তারেকের বাসায় জায়গা পাননি শর্মিলা

দীর্ঘদিন ধরে মামলা মোকাদ্দমার ভার মাথায় নিয়ে লন্ডনে আছেন তারেক। দেশের মাটিতে  তার পদচিহ্ন পরেনি অনেক দিন হলো।  কারাবন্দী হওয়ার ভয়তে তিনি দেশে আসছে না। যদিও তিনি বারবার বলছেন যে শারীরিক অসুস্থতার জন্য চিকিৎসার স্বার্থে তিনি লন্ডনে আছেন। কিন্তু  চিকিৎসার নাম করে বছরের পর বছর  লন্ডনে আছেন দুর্নীতির এই বরপুত্র।

সম্প্রতি লন্ডনে গিয়েছেন তারেকের প্রয়াত ছোট ভাই কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান। শর্মিলা লন্ডনে তারেকের বাসায় গিয়েছিলেন ব্যাগপত্র নিয়ে কিছুদিন থাকার জন্য। কিন্তু আত্মীয়  তথা ছোট ভাইয়ের স্ত্রী হিসেবে তিনি কিছুদিন তারেকের বাসায় থাকার সুযোগ পাননি। ক্ষনিকের কথাবার্তার পরই ব্যাগপত্র নিয়ে  তাকে হোটেলের পথ ধরতে হয়েছিল।

কারণ অন্য সবার মতোই শর্মিলাও ধীরে ধীরে হয়ে উঠেছেন ক্ষমতা লোভী। বিএনপির কিছু সিনিয়র নেতাদের সাথে তার  রয়েছে গোপন যোগাযোগ। বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সাথে যোগাযোগ থাকার ভিত্তিতে তিনিও আজ ক্ষমতা চান। তারেক মনে করেছিলেন যে শর্মিলা বিএনপির সিনিয়র নেতাদের সাথে যুক্তি করে লন্ডনে এসেছেন এবং তার বাসায় মেহমান হিসেবে কিছুদিন থাকবেন। এর বিনিময়ে তিনি তারেককে বুঝিয়ে ক্ষমতা হাতিয়ে নিবেন। এমনকি তারেকের স্ত্রী জোবায়দার সাথেও সম্পর্ক ভালো নেই শর্মিলার। এছাড়াও শর্মিলার রয়েছে কিছু পুরনো দোষ। এজন্যই জোবায়দাও তার থাকাটা সহজ ভাবে নেননি।

এছাড়াও শর্মিলা কিছু দিন আগে গিয়েছিলেন কারাগারে খালেদার সাথে দেখা করতে। সেখানে গিয়ে তিনি তারেকের নামে  নানা রকম কটূক্তি করা শুরু করেছিলেন। এই কথা চলে যায় সুদূর লন্ডন পর্যন্ত তারেকের কানে। সব মিলিয়ে শর্মিলার কৃতকর্মের জন্য লন্ডনে তারেকের বাসায় তাকে জায়গা দেয়া  হয়নি।