কোম্পানীগঞ্জের স্যানিটারী ইন্সপেক্টরের চাঁদাবাজিতে অতিষ্ঠ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা

ইকবাল হোসেন মজনু :

নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যানিটারী ইন্সপেক্টর এ এইচ এম সফিক উল্যাহর অনৈতিক চাঁদার দাবিতে অতিষ্ঠ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। তিনি অবৈধভাবে নোটিশ জারি করে বিভিন্ন বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে দেদারছে চাঁদাবাজি করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, কোম্পানীগঞ্জের স্যানিটারী ইন্সপেক্টর সফিক উল্যাহর বাড়ি এ উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নে। তিনি উপজেলার বিভিন্ন বাজারে ভেজাল ও অস্বাস্থ্যকর খাবার দোকানসহ বিভিন্ন হোটেলে নিজে নিজে নোটিশ পাঠিয়ে মোবাইল কোর্টের নামে হানা দিয়ে অনৈতিকভাবে কোন রশিদ ছাড়া টাকা আদায় করে আসছেন।

সম্প্রতি তিনি তাঁর নিজ এলাকা মুছাপুরের বাংলাবাজারে রাতের অন্ধকারে চাঁদাবাজি করতে গিয়ে নাজেহালও হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। পরে কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশ গিয়ে তাকে গণরোষ থেকে উদ্ধার করে আনেন।

এ ব্যাপারে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোহাম্মদ সেলিম বলেন, এভাবে নোটিশ জারি, একা একা মোবাইল কোর্ট ও রশিদবিহীন টাকা আদায় করার এখতিয়ার তার নেই। যদি করে থাকেন তা অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে স্যানিটারী ইন্সপেক্টর এ এইচ এম সফিক উল্যা কোন কথা বলতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নিষেধ রয়েছে বলে এড়িয়ে যান।

প্রসঙ্গত; এরআগে এই স্যানিটারী ইন্সপেক্টর কোম্পানীগঞ্জের এক আমেরিকান প্রবাসী পরিবারকে এইডস সংক্রান্ত ডাক্তারী পরীক্ষার সনদ তার কাছে জমা দিতে নোটিশ জারি করেন বলে জানাগেছে। ঐ ঘটনায় তিনি শাররীকভাবে লাঞ্ছিত হওয়ার পর তাকে অন্যত্র বদলী করা হয়। পরে তিনি তদবীর করে আবার কোম্পানীগঞ্জ এসে বিগত প্রায় ৫ বছর আবারও একই কায়দায় অনিয়ম করে যাচ্ছেন বলে স্থানীয়রা দাবী করেছে।