মওদুদ আহমদের বক্তব্য প্রত্যাহার দাবী করে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের সংবাদ সম্মেলন

নোয়াখালী প্রতিনিধি :
বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য সাবেক আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদের বক্তব্য প্রত্যাহার দাবী করে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগ সংবাদ সম্মেলন করেছে। গতকাল শুক্রবার বিকাল ৩টায় উপজেলা আ’লীগ কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল।
মওদুদ আহমদের দেয়া বক্তব্যের প্রতিবাদে মিজানুর রহমান বাদল তাঁর লিখিত বক্তব্যে বলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির বয়োবৃদ্ধ এ নেতাকে আমরা সম্মান করি। কিন্তু তিনি আমাদের প্রিয় নেতা নোয়াখালীর উন্নয়ন ও রাজনৈতিক শান্তি এবং স্থিতিশীলতা বজায় রাখার অন্যতম রূপকার বাংলাদেশের ইতিহাসের সফল মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরকে নিয়ে যে মিথ্যাচার ও অনভিপ্রেত বক্তব্য দিয়েছেন আমরা উপজেলা আ’লীগের পক্ষ থেকে তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। পাশাপাশি অনতিবিলম্বে মওদুদ আহমদের এ বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবী জানাচ্ছি।
উল্লেখ্য গত বৃহস্পতিবার মওদুদ আহমেদ সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, কোম্পানীগঞ্জে বাক স্বাধীনতা নেই, গণতন্ত্র নেই এবং পুলিশ দিয়ে তাঁকে হয়রানী করা হচ্ছে। পাশাপাশি “নিরাপদ সড়ক চাই” নামক ছাত্রদের আন্দোলনে ওবায়দুল কাদেরকে জড়িয়ে তাঁর পদত্যাগ চেয়েছেন। এরই প্রতিবাদে উপজেলা আ’লীগ থেকে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
মিজানুর রহমান বাদল বলেন, কোম্পানীগঞ্জে যদি বাক স্বাধীনতা না থাকতো, তাহলে তিনি কিভাবে সংবাদ সম্মেলন করেন? কিভাবে নেতাকর্মীদের সাথে দলীয় সভা সমাবেশ করছেন? পুলিশ কাউকে হয়রানী করছে না উল্লেখ করে বাদল বলেন, মওদুদ আহমেদ যতবাইর বাড়িতে আসলেই তাদের দলীয় কোন্দলের কারনে উনার উপস্থিতিতে বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে হামলা প্রতিহামলার ঘটনা ঘটে। আমরা চাই মওদুদ ্আহমদের মতো সিনিয়র নেতা যেন কোন রকম অসুবিধায় না পড়ে সেজন্য তাঁর নিরাপত্তার জন্য পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে।
সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করা হয়, মওদুদ আহমদের শাসন আমলে কোম্পানীগঞ্জে ৫০  কোটি টাকার বাজেটও একসাথে পাওয়া যায়নি। কিন্তু ওবায়দুল কাদেরের আমলে কোম্পানীগঞ্জে হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কর্মকান্ড হয়েছে ও্ আরো কাজ চলমান রয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি ও বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আব্দুল কাদের মির্জা, উপজেলা আ’লীগ সাধারণ সম্পাদক নূর নবী চৌধুরী, পৌর আ’লীগ সভাপতি রেয়াজল হক লিটন, সাধারণ সম্পাদক আবুল খায়ের, উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক গোলাম ছারওয়ার, উপজেলা সেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি এডভোকেট শাহীদুর রহমান তুহিন, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি নিজাম উদ্দিন মুন্না, কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি নূর এ মাওলা রাজু ও সাধারণ সম্পাদক মোবারক হোসেন রিয়াদ প্রমুখ।