নীরবতা, নালিশকেই আসল রাজনীতির কৌশল ভাবছে বিএনপি

নিউজ ডেস্ক: নীরবতা এবং গোল টেবিল বৈঠক করে দেশবাসী এবং বিদেশিদের কাছে নালিশ করাকে বর্তমান প্রেক্ষাপটে উত্তম রাজনীতি ভাবছে বিএনপি। সাম্প্রতিক সময়ে সরকার বেশ কয়েকটি আন্দোলনকে কৌশলে সুন্দরভাবে নিয়ন্ত্রণ করে দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরিয়ে নিয়ে আসায় রাজনীতির নামে মাঠ গরম করাকে অহেতুক ও অযৌক্তিক ভাবছে বিএনপি।

সরকার জনগণের মনোভাব বুঝতে পেরে জনকল্যাণের জন্য সব কিছু করায় জনগণের সামনে মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ করাকে খুব বেশি কার্যকরী পন্থা ভাবছে না বিএনপি। কিন্তু রাজনৈতিক দল হিসেবে টিকে থাকতে হলে সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলতে হবে, সরকারের সমালোচনা করে নিজেদের অস্তিত্ব জানান দিতে হবে, এই বিবেচনায় যেকোন ইস্যুতে তাই গোল টেবিল বৈঠক এবং নালিশ করাকেই আসল রাজনৈতিক কৌশল ভাবছে বিএনপি।

সূত্র বলছে, দুর্নীতির দায়ে খালেদা জিয়া জেলে গেলে বিএনপি ভেবেছিল দেশব্যাপী দুর্বার আন্দোলন হবে। জনগণ রাস্তায় নেমে সরকার পতনের আন্দোলনে একাত্মতা প্রকাশ করবে। খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন এবং সরকার বিএনপির সাথে সমঝোতা করে আগামী নির্বাচন নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করবেন। কিন্তু ঘটনা ঘটল বিপরীত। খালেদা জিয়ার মুক্তি নিয়ে উচ্চবাচ্য করেনি দেশবাসী। প্রমাণিত দুর্নীতির ঘটনায় অপরাধীর পক্ষ নেয়নি জনগণ। এই ঘটনায় হতাশ হয়ে বিএনপি শুধু প্রেস ব্রিফিং এবং নালিশ করে গেছে। লাভের লাভ যেটা হয়েছে, মিছিল মিটিং না করায় কোনো নেতা গ্রেপ্তার হননি। রাজনীতির ক্লাশ শেষ করেই ব্যবসা-বাণিজ্য দিব্বি চালিয়ে যাচ্ছেন নেতারা। তারেক রহমান লন্ডন থেকে বার বার ফোন করে আন্দোলন গড়ে তোলার নির্দেশ দিলেও নেতারা গাছাড়া ভাব নিয়ে নামকাওয়াস্তে প্রেস ব্রিফিং করে কান্নাকাটি করেন। পান থেকে চুন খসলেই সরকারের দোষ দেয় বিএনপি।

সূত্র বলছে, বিদেশি বন্ধুদের নির্দেশেই আপাতত ফখরুলপন্থি বিএনপি নেতারা নীরবতা এবং প্রেস ব্রিফিংয়ের রাজনীতি করছেন। যেহেতু তারেক রহমান একজন অপরাধী এবং দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী, তাই তারেককে বাদ দিয়ে মির্জা ফখরুলের ওপর আস্থা রাখছে বিএনপির বিদেশি বন্ধুরা। জানা গেছে, রাজনীতির নামে হানাহানি, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগের মতো ঘটনা থেকে দূরে থাকলে আগামী নির্বাচনে মধ্যপ্রাচ্যের কয়েকটি দেশ মির্জা ফখরুল নিয়ন্ত্রিত বিএনপির একাংশকে মোটা অংকের অর্থ সহায়তা দিবে। পাশাপাশি সরকারের সাথে যোগাযোগ করে মামলা-মোকাদ্দমার নামে হয়রানি না করার অনুরোধ করবে তারা। তাই ভবিষ্যত রাজনীতি এবং নিরাপদ জীবনের কথা চিন্তা করে আপাতত নীরবতা পালন এবং নালিশ দেওয়াকেই আসল রাজনীতি ভাবছে বিএনপি।