ফেনী পাসপোর্ট অফিসের দুই দালালের কারাদন্ড

শহর প্রতিনিধি :
ফেনীর পাসপোর্ট অফিসে কন্ট্রাক্ট করে পাসপোর্ট পাওয়া যায়, গুণতে হয় ৫ হাজার ৪শ থেকে ১২ হাজার টাকা। স্বাভাবিক নিয়মে পাসপোর্ট করতে হলে হতে হয় হয়রানি। এরকম তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করে জেলা প্রশাসন। অভিযানের নেতৃত্ব দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানা।

ভ্রাম্যমান আদালত সূত্রে জানা গেছে, কেবি এজেন্সীর সুবল চন্দ্র ভৌমিক ১২ হাজার টাকায় কন্টাক্ট করে এক পাসপোর্টের। সে টাকা গ্রহণ করতে গেলে পাসপোর্ট অফিসের সামনে তাকে হাতে নাতে ধরে ফেলে মোবাইল কোর্ট। সুবল চন্দ্র ভৌমিককে ২ মাসের কারাদন্ডে দন্ডিত করে আদালত। এ সময় পাসপোর্ট অফিসের সামনে নূর এন্টারপ্রাইজের সামনে মুহাম্মদ ইফতেখারুল নামের আরেক ক্লায়েন্টের পাসপোর্ট কন্টাক্ট করেন শাহরিয়ার (১৯)। দেখা যায়- ফেনী সরকারি কলেজের এক শিক্ষকের সিল জাল করে সেটি দিয়ে সত্যায়িত করা। শাহরিয়ারকে দুই মাসের কারাদন্ডে দন্ডিত করেন আদালত। বেরিয়ে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য।

আটককৃতরা বলেন, প্রতিটি পাসপোর্টের পুলিশ ভেরিফেকসনে দিতে হয় ৭ শ টাকা রেগুলার, আর্জেন্ট ৮শ টাকা, পাসপোর্ট অফিসে দিতে হয় ১১শ থেকে ১২শ টাকা। বাকি টাকা যায় দালালের পকেটে। পাসপোর্ট অফিসের সদস্যদের মাধ্যমে টাকা যায় অফিসে। সামনের দোকানগুলোতে ভিড় করে এজেন্টরা। এর মাঝে দালালদের কেন্দ্র হল নূর এন্টারপ্রাইজ।
অভিযানের সময় ব্যাটালিয়ান আনসারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

ভ্রাম্যমান আদালত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সোহেল রানা কারাদন্ডের তথ্য নিশ্চিত করেছেন।