পোশাক পছন্দ না হওয়ায় শুটিং থেকে চলে গেলেন ঐশ্বরিয়া

দৈনিক দৃষ্টান্ত ডেস্ক : পোশাক পছন্দ না হওয়ায় ‘ফ্যানি খান’ ছবির শুটিং করেননি বলিউড তারকা ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন।

শনিবার থেকে ছবির শুটিং শুরু করার কথা ছিল ঐশ্বরিয়ার। কিন্তু শেষ মুহূর্তে বেঁকে বসেন তিনি। মণীশ মালহোত্রার বানানো পোশাক মনের মত না হওয়ায় শুটিং না করার কথা জানিয়ে দেন তিন, শুটিং না করেই বাড়ি চলে যান।

৬ অক্টোবর থেকে ৮ অক্টোবর মুম্বাইয়ে তিন দিন ফ্যানি খানের ঐশ্বরিয়া অংশের শুটিং হওয়ার কথা ছিল। ছবিতে অনিল কাপুরের স্নেহশীল পিতার ভূমিকায়, একইসঙ্গে পায়ের তলায় মাটি খোঁজা গায়ক। অনিলের অংশের শ্যুটিং শেষ। ঐশ্বরিয়ার নায়ক রাজকুমার রাও। ঐশ্বরিয়া বা রাজকুমার- কারও শুটিং এখনও শুরু হয়নি। কথা ছিল, শনিবার থেকে তাদের অংশের কাজ শুরু হবে। কিন্তু অ্যাশের পোশাক পছন্দ না হওয়ায় তিনি শুটিং থেকে চলে যান। এ অবস্থায় দীপাবলির পর তার শুটিং শুরু হবে বলে জানানো হয়। এর মধ্যে মণীশ তার পোশাক এক্কেবারে পছন্দসই করে ফেলবেন, মার্কিন পপ স্টার বিয়ন্সের ফ্যাশন ধাঁচে।

ফ্যানি খান নির্মাতারা বলেছেন, যেহেতু ছবিতে ঐশ্বরিয়া একজন তারকা তাই তার পোশাক অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তিনি ছবিতে একদম নিখুঁত দেখাতে চান, তাই তার চাহিদা না মেটায় শুটিং বন্ধ রাখা হয়েছে।

এরআগে এ ছবির অন্তরঙ্গ দশ্যেও না করে দিয়েছেন ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন। ছবির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একজন সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছে, ঐশ্বরিয়া যে ছবিতে অভিনয় করেন, সেই ছবির প্রতিটি দৃশ্যের ব্যাপারে তিনি খুবই সচেতন। আগে থেকেই সবকিছু আলোচনা করে নেন। এবার চিত্রনাট্য দেখে তিনি বুঝে গেছেন, ‘ফ্যানি খান’ ছবিতে তাকে কিছু অন্তরঙ্গ দৃশ্যে অভিনয় করতে হবে। তাই আগে থেকেই জানিয়ে দিয়েছেন, এ ধরনের কোনো দৃশ্যে তিনি কাজ করবেন না। আর তার ইমেজের ক্ষতি হয়, এমন কোনো দৃশ্য রাখা যাবে না ছবিতে।

২০০০ সালে অস্কার প্রতিযোগিতায় মনোনয়ন পাওয়া ডাচ ছবি ‘এভরিবডি’স ফেমাস’-এর রিমেক ‘ফ্যানি খান’। পরিচালনা করছেন অতুল মাঞ্জরেকার। ছবিটি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাবে ২০১৮ সালের এপ্রিল মাসে।

এরই মধ্যে জানা হয়ে গেছে, ‘তাল’ (১৯৯৯) আর ‘হামারা দিল আপকে পাস হ্যায়’ (২০০০) ছবির পর অনিল কাপুরের সঙ্গে আবার অভিনয় করবেন ঐশ্বরিয়া। তবে ‘ফ্যানি খান’ ছবিতে যে তারা জুটি হচ্ছেন না, এটা নিশ্চিত।

ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চন সর্বশেষ অভিনয় করেছেন ২০১৬ সালে ‘অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল’ ছবিতে। আর এই ছবিতে কিছু অন্তরঙ্গ দৃশ্যে অভিনয় করে সমালোচিত হন তিনি। সমালোচনার মুখে পড়েন তার শ্বশুরবাড়ির লোকজনের কাছেও।